তারিখ : ২২ আগস্ট ২০১৮, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

পত্নীতলায় জমে উঠেছে ঈদ বাজার

পত্নীতলায় জমে উঠেছে ঈদ বাজার
[ভালুকা ডট কম : ১০ জুন]
ঈদ মানেই চাই  নতুন কিছু । তা হোক পোশাক, কসমেটিক্স সামগ্রী, জুতা বা অন্য কিছু। ঈদুল ফিতর আসতে আর মাত্র ক’দিন বাকি। ঈদকে সামনে রেখে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন কেনাকাটা করতে। তবে এবার ঈদের কেনাকাটা মানেই বিদেশী পণ্যের চাহিদা সব চেয়ে বেশি।

ঈদের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার বাজারগুলো ক্রেতাসাধারণের সমাগমে তার চেয়ে অধিক পরিপূর্ণ পরিলক্ষিত হচ্ছে, জমে উঠেছে ঈদের বাজার। সদরের বিভিন্ন মার্কেটের শপিং মল থেকে শুরু করে ফুট পাতের দোকান গুলোতে তিল ধরনের ঠাঁই নেই। ঈদে চাই নতুন পোশাক। তাইতো সাধ আর সাধ্যের মধ্যে না থাকলেও প্রিয় জনকে উপহার দিতে ধনী ও মধ্যবিত্তদের পাশাপাশি কেনা কাটায় ব্যস্ত সময় পার করছে নিম্নবিত্তের মানুষগুলোও।

উপজেলা শহরে বসবাসকারী জনসাধারণ ছাড়াও বিভিন্ন গ্রাম সহ পাশ্ববর্তী উপজেলার হতে দলে দলে লোকজন প্রতিদিন ঈদের বাজার করতে আসছে উপজেলা শহরে। পত্নীতলা  উপজেলা শহরের বঙ্গবাজার মার্কেট, আর্শিবাদ  মার্কেট, রব্বানী মার্কেট, আহসান  মার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেটের প্রথম পছন্দের তরুণ তরুণীদের কসমেটিক্স, ছোট বড় সকল কাপড়ের বিপনী বিতানগুলোতে এবারের ঈদের কালেকশনে নজর কাড়া বাহারী পোষাকের ঝলকের মধ্যে আগের বছরের পোশাক গুলোই বেশি বেশি নজর কাড়ছে ক্রেতাদের। এগুলোর মধ্যে বাহুবলী,  গ্রাউন্ড ,ডালি ,ঋষিকা, সেলফি, কুলফি, পাহাড়পুরি, আনারকলি, ডিভাইডার গাওন, জিপসী সহ হরেক রকমের বাহারী থ্রী-পিস, লেহেঙ্গা, ফতোয়া, সেলোয়ার, কামিজ। ছোলেদের জন্য রয়েছে, টি শার্ট, গেঞ্জী, পাঞ্জাবী, জিন্সপ্যান্ট, শর্ট প্যান্ট, রাখিবন্ধন, পটল কুমার, বজরাঙ্গি ভাইজাং, ফ্লোর টার্চ, লাসা, লং স্কট, সুলতান সুলেমান পাঞ্জাবী আকৃষ্ট করেছে দেশীয় পণ্য টাঙ্গাইল শাড়ি, জামদানী, খদ্দর, মনীপুরী, রাজগুরু, বালুচুরী, জর্জেট শাড়ি ইত্যাদি।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ছোট-বড় সব বয়সী মেয়েদের জন্য বিভিন্ন ধরণের থ্রি পিস, টপস, জিপসি, ফ্লোর টাচ নামের পোশাক রয়েছে বিপণিবিতানগুলোতে। এসব পোশাক ১০০০ থেকে শুরু করে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া তরুণীদের হাল ফ্যাশনের বিভিন্ন ধরণের গাউন, ফ্রগ ও লেহেঙ্গা চাহিদাও রয়েছে প্রচুর। ভারতীয় টিভি সিরিয়াল ‘ভজ গোবিন্দ’ নাটকের চরিত্র ডালি চৌধুরী। ওই চরিত্রের নামে দোকানগুলোতে পাওয়া যাচ্ছে ডালি গাউন ও ডালি স্কার্ট। এই গাউন ও স্কার্ট বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকায়। এছাড়া পদ্মাবত সিনেমার চরিত্র রাণী পদ্মাবতীর নামে বাজারে আসা ‘পদ্মাবতী লেহেঙ্গা’ তরুণীদের মাঝে বেশ সাঁড়া ফেলেছে। এই লেহেঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার।

আর্শিবাদ  মার্কেটের বেনারশী পল্লীর দোকান মালিক মো: রেজাউল মাহমুদ বলেন, এবারের ঈদে তারা সেরা ডিজাইনগুলিই তাদের দোকানে এনেছেন এবং মেয়েদের একটি পোষাক সর্বোচ্চ ১০০০০-১৫০০০ টাকায় বিক্রি করেছেন। তার দোকানে ঢাকাইয়া জামদানি শাড়ী বেশী বিক্রী হচ্ছে ।

বঙ্গবাজারের হাবিব ফ্যাশন লেডিস এ্যন্ড বেবী পয়েটের মালিক আরমান হাবিব বলেন বেচাকেনা ভাল হচ্ছে ,আহসান প্লাজার আলম ক্লথ ষ্টোরের মালিক শামসুল আলম  বলেন  আমি বাজারে সবার চাইতে কম দামে অল্প লাভে বিক্রী করছি ,সিট কাপড়ে গজ প্রতি ৫ টাকা ও তৈরী পোষাকে ২০০/৩০০ টাকা কমে বিক্রী করছি ,বিক্রীও ভাল হচ্ছে ।

এ ছাড়াও সাধারণ খেটে খাওয়া গরীব মানুষদের কেনা কাটা করার জন্য রয়েছে ফুটপাত দোকান সেখানেও রয়েছে প্রচুর রকমের বাহারী পোষাক, এখানকার খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ সে সব সেটের দোকানে গিয়ে তাদের ও তাদের সন্তানদের জন্য পছন্দের পোষাক কিনছে।

বঙ্গবাজারের আপন ক্লথ ষ্টোরে  বসে কাপড় কেনার সময় ক্রেতা ঝরনা পারভীনের সঙ্গে কথা হলে তিনি  এ বলেন  পরিবারের সবার জন্য নতুন কাপড় কিনছি , দামটা একটু বেশী তার পরও কিনছি । পরিবারের সবাই যেন খুশি থাকে  এ জন্য  কিনছি  নিজের জন্য কি কিনছেন উত্তরে বলেন না নিজের কিছু কিনছি না গত ঈদের একটা জামদানি আছে  তা দিয়েই চালিয়ে নিবো ।=এবারে উপজেলা সদর ছাড়া গ্রামের লোকজন বেশী আসছে ঈদের কেনা-কাটা করতে। পত্নীতলা  উপজেলা ছাড়া পাশ্ববর্তী বদলগাছী ,ধামইরহাট ,সাপাহার ,মহাদেবপুর উপজেলা হতে অসংখ্য মানুষ প্রতিদিন ঈদের বাজার করতে পত্নীতলা  আসছে। পত্নীতলা এখন জমজমাট ভাবে প্রতিটি মার্কেটে ঈদের কেনা-বেচা চলছে।

বদলগাছী ,ধামইরহাট ,সাপাহার ,মহাদেবপুর  চারদিকে চারটি উপজেলা মাঝখানে পত্নীতলা , চারটি উপজেলার লোক এখানে বাজার করতে আসে। এ কারনে দিনের পর দিন এই উপজেলায় ব্যাপক ভাবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ,কলকারখানা  অভিজাত র্মাকেট ,শপিংমল  গড়ে উঠছে  ,চারটি উপজেলার প্রাণ কেন্দ্র পত্নীতলা , নওগাঁ জেলা শহরের পরেই পত্নীতলা একটি উন্নত উপজেলা।#






সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

বিনোদন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫২৫ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই