তারিখ : ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮, শুক্রবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ভালুকার দায়িত্বশীল ব্যক্তির দায়িত্বহীন ব্যক্তব্যে আমি লজ্জিত-হাজী সানি

ভালুকার দায়িত্বশীল ব্যক্তির দায়িত্বহীন ব্যক্তব্যে আমি লজ্জিত-হাজী সানি
[ভালুকা ডট কম : ১১ অক্টোবর]
বাস্তবতা সমাজের দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের দায়িত্বহীন ব্যক্তব্যে হরণ হচ্ছে দৈনন্দিন জীবনের বিনয় ও সরলতা অবহেলিত লাঞ্ছিত হচ্ছে প্রতিবাদীচেতনা। পরম শাসনকর্তা অবশ্যয় এক দিন প্রশ্ন করবে দায়িত্বশীল প্রত্যেককে তার স্ব-স্ব দায়িত্ব সম্পর্কে ।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর এবং ০১ অক্টোবর ভালুকার দুইজন দায়িত্বশীল ব্যক্তির দুটি ঘোষণাপত্র অনলাইনে প্রকাশিত হয় যার লেখনি হুবহু এ কি ছিল কিন্তু ব্যক্তি পরিচয় ছিল শুধুমাত্র ভিন্ন একজন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর ভালুকা উপজেলা সাধারণ সম্পাদক এবং ভালুকা উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম মোস্তফা সাহেবের এবং অন্যটি ছিলেন আরেক আওয়ামী লীগ নেতা বর্তমান ভালুকা পৌর মেয়র জনাব ডাঃ মেজবাহউদ্দিন কাইয়ুম সাহেবের। দুজন ব্যক্তির ঘোষণাপত্র ছিল ভালুকা ডট কম অনলাইন পত্রিকার পারস্পরিক কর্মকাণ্ড নিয়ে। দুঃখের বিষয় ঘোষণাপত্রটি প্রধানের যে নিয়ম সেই অনুযায়ী ভালুকা ডট কম অনলাইন পত্রিকা কর্তৃপক্ষকেও জানানো উচিত ছিল কিন্তু উনারা তা করেননি যাই হোক আমি এই বিষয়ে তেমন কিছু বলে সম্মানিত ব্যক্তিদের সম্মান খর্ব করতে মোটেও স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করিনা তাই এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে চাচ্ছি না। তারপরও বিগত কয়েকদিন যাবত এই ঘোষণাপত্র দুটি অনলাইনে চলমান থাকায় ভালুকা ডট কমের বেশ কয়েকজন পাঠক প্রশ্ন করে জানতে চায় এর সত্যতা সম্পর্কে তাই আমার মনে হয় এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সঞ্চালক হিসেবে আমার দায়িত্ব পাঠকদের সে প্রশ্নের উত্তর দেয়া।

ঘোষণাপত্র দুটি হলেও আশ্চর্যজনক ভাবে উপজেলা চেয়ারম্যান এবং পৌর মেয়র সাহেবের চিন্তাভাবনা এবং কি লেখনি সব একই রকম তাই আমার মন্তব্য দুজনের জন্যই। উনাদের ঘোষণাপত্রের প্রথমে অংশে বলা হয়েছে সাংবাদিক আলহাজ্ব জহিরুল ইসলাম জুয়েল ,আলহাজ্ব আফজাল উল-ইসলাম ফুজেল, আলহাজ্ব মাজহারুল ইসলাম এর নাম। আমার বিনীত প্রশ্ন ঘোষণা পত্র প্রদানকারী দায়িত্বশীল ওই দুইজন মহান ব্যক্তি কে যে তিনটি নাম উনারা ঘোষণাপত্রে উল্লেখ করেছেন আমার নামটি ছাড়া উনাদের সাথে ভালুকা ডট কমের সম্পর্ক কি? ওনাদের মত দায়িত্বশীল ব্যক্তির কাছে কি একজন ব্যক্তির পারিবারিক সম্পর্ক আর কোন প্রতিষ্ঠানের সম্পর্কের মধ্যে কোন পার্থক্য বোধগম্য হয়নি?আলহাজ্ব জহিরুল ইসলাম জুয়েল এবং অন্য দুই ব্যক্তির সাথে ভালুকা ডট কম এর সঞ্চালক আলহাজ্ব আফতাব আহমেদ সানি (হাজী সানি) এর পারিবারিক সম্পর্ক তারা ভাই তার জন্য ভালুকা ডট কমের ঘোষণাপত্রে তাদের নাম কতটুক যুক্তিসঙ্গত?

দ্বিতীয় অংশে উনারা লিখেছেন ভালুকা ডট কম উনাদের কাছ থেকে কোন এক প্রত্যায়ন পত্র নিয়ে তারমধ্যে কম্পিউটার দিয়ে জালিয়াতি করে কি যেন এক স্বার্থ সিদ্ধি করার চেষ্টা করছে। আমার প্রশ্ন এই দুইজন দায়িত্বশীল ব্যক্তির কাছে ভালুকা ডট কম কখন কোন দিন আর কি প্রত্যয়ন পত্র নিয়েছেন তা জনসম্মুখে উনারা কি দেখাতে পারবেন আর যদি সে প্রত্যয়ন পত্র সাংবাদিক আলহাজ্ব জহিরুল ইসলাম জুয়েল নিয়ে থাকেন তবে তার কোথাও কি উল্লেখ ছিল ভালুকা ডট কম এর নাম? যদি না থেকে থাকে তবে কি করে ভালুকা ডট কম এর নামে ঘোষণাপত্রে এই বিষয়টি উল্লেখ করা হল এটা কতটুক দায়িত্বশীলতার মধ্যে আছে? তারপরও সাংবাদিক আলহাজ্ব জহিরুল ইসলাম জুয়েল আমার ভাই এজন্যই আমি সম্পূর্ণ দায়িত্ব নিয়ে উনাদেরকে প্রশ্ন করছি সাংবাদিক আলহাজ্ব জহিরুল ইসলাম জুয়েল যে প্রত্যয়ন পত্র উপজেলা পরিষদ থেকে নিয়েছে তারমধ্যে উল্লেখিত ঘোষণাপত্রে যে জালিয়াতির কথা বলা হয়েছে তার কোন প্রমাণ উনারা দিতে পারবেন কিনা?

তৃতীয় প্রশ্ন উনাদের ঘোষণাপত্রের এক অংশে আমাকে নিয়ে বলা হয়েছে আমি ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ থেকে গোপনে দেশ ত্যাগ করে সৌদি আরবের কোন অজ্ঞাত স্থান থেকে ভালুকা ডট কম অনলাইন পত্রিকা টি পরিচালনা করছি। যথাবিহিত সম্মান পূর্বক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম মোস্তফা এবং পৌর মেয়র ডা: কাইয়ুম সাহেবকে অনুরোধ করব উনারা যে লেখা টি ঘোষণাপত্রে দিয়েছেন তার মর্ম বাণী উনাদের জানা আছে কি না? একজন ব্যক্তি গোপনে দেশ ত্যাগ করার মানে উনাদের মতো দায়িত্বশীল ব্যক্তি জানেন কিনা? একজন ব্যক্তি কে অজ্ঞাত কিভাবে বলা হয় তা উনাদের জানা আছে কি না? কারণ আমার দৃষ্টিতে ১৯৯৭ সালে ঐ সময়ের সরকার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকারের কাছ থেকে বৈধ পাসপোর্ট এবং জনশক্তি থেকে বৈধ ভিসার মাধ্যমে আমি সৌদি আরব আসি। উনাদের কথা অনুযায়ী তাহলে কি ওই সময়ের সরকারের কর্মকাণ্ড কে উনাদের মতো দায়িত্বশীল ব্যক্তি অবৈধ বলে চালানোর চেষ্টা করছে।? আরেকটি বিষয় ভালুকা ডট কম যে পরিমাণ স্থানে আমার সম্পর্কে ঠিকানা এবং যোগাযোগ করার ব্যবস্থা প্রদান করা হয়েছে তারপরও যদি কোন দায়িত্বশীল ব্যক্তি বলেন আমি অজ্ঞাত স্থানে আছি তবে তা সত্যিই দুঃখজনক।

৩০ সেপ্টেম্বর এবং ০১ অক্টোবর উনাদের ঘোষণাপত্রে আমার পরিচয় বলা হয়েছে আমার পিতা এক সময় বিএনপি'র রাজনীতি করতেন কিন্তু যে বিষয়টি উনারা প্রচারের চেষ্টা করছে ২০১৮ সনে সেই বিষয়টি আমি ভালুকা ডট কম এ ২০১২ সনে আমার জীবন বৃত্তান্ত লিখে রেখেছি কাজেই ভালুকা ডট কমের কোন পাঠকের ই জানার বাকি নেই আমার পিতা কে এবং উনি কোন রাজনীতিতে বিশ্বাসী।লিং টিতে সত্য মিথ্যা প্রমানিত- http://valuka.com/News/NewsDetail/110

চতুর্থ প্রশ্ন দায়িত্বশীল স্থান থেকে যদি কোন বক্তব্য কেউ প্রদান করে তার বক্তব্য আর একজন সাধারণ দিনমজুরের বক্তব্য এর মধ্যে অবশ্যই পার্থক্য থাকা প্রয়োজন। দায়িত্বশীল ব্যক্তি কথা বলেন তথ্য প্রমানের ভিত্তিতে আর আমার দৃষ্টিতে ঘোষণাপত্র প্রদানকারী দুইজন ব্যক্তি মহান দায়িত্বে নিয়োজিত এবং দায়িত্বশীল তাই উনাদের ঘোষণাপত্রে বলা হয়েছে ভালুকা ডট কম অনলাইন পত্রিকা টি স্বাধীনতাবিরোধী সরকারবিরোধী কর্মকাণ্ড প্রচার করছে, এবং মুক্তিযুদ্ধের ও মুক্তিযুদ্ধাদের নিয়ে আপত্তিকর সংবাদ প্রকাশ করে মানহানি করছে। আমার প্রশ্ন হচ্ছে অনলাইন পত্রিকা টি শুরু থেকে আজ পর্যন্ত কোথাও একটি বাক্য সরকারবিরোধী অথবা স্বাধীনতাবিরোধী অথবা কারো মানহানির উদ্দেশ্য নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে এমন কোন তথ্য প্রমাণ উনাদের কাছে আছে কি? যা উনারা দেখাতে পারেন? যদি উনাদের কাছে এর কোনও সঠিক তথ্য না থেকে থাকে তবে উনাদের মত দায়িত্বশীল ব্যক্তি কিভাবে এমন দায়িত্বহীন কথা বলতে পারে?

এই সবগুলি প্রশ্ন প্রথমে আমি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ভালুকা শাখার সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব গোলাম মোস্তফা সাহেব কে করলে তিনি প্রথমে বলেন এ ঘোষণাপত্র উনি দেন নি পরে একটি পর্যায়ে উনি বলেছেন এই বিষয়ে বিস্তারিত ভালুকা ডট কম পরিচালনা পরিষদের সভাপতি প্রবীণ সাংবাদিক আব্দুল আউয়াল ডালীর সাথে কথা বলে উনি জানাবেন। এক সময় উনার কাছে আমি জানতে চেয়েছিলাম ভালুকা ডট কম এর উপদেষ্টা পরিষদে আপনার নাম দেয়া হবে এমন কথা আপনাকে প্রবীণ সাংবাদিক আব্দুল আউয়াল ডালী আপনাকে জানিয়েছিল কিনা উনি উত্তরে বলেন ডালী আমার সাথে এ বিষয়ে কথা বলেছিল।

একই বিষয়ে আমার কথা হয় ভালুকা পৌর মেয়র ডাক্তার মেজবাহউদ্দিন কাইয়ুম সাহেবের সাথে উনার কাছে প্রথমে আমি জানতে চেয়েছিলাম এই ঘোষণাপত্রটি উনি দিয়েছেন কিনা উনি অকপটে বলেছেন যে আমি এই ঘোষণাপত্রটি দিয়েছি। তখন উনাকে আমি প্রশ্ন করেছিলাম আপনার ঘোষণাপত্রে এক স্থানে আপনি লিখেছেন আমি গোপনে দেশ ত্যাগ করেছি এর মানে আমি কি অবৈধভাবে দেশ থেকে সৌদিআরব এসেছি যেখানে আমার কাছে ১৯৯৭ সালের বর্তমান সরকারের আগের পিরিয়ডে দেয়া আমাকে বৈধ পাসপোর্ট এবং বৈধ ভিসার মাধ্যমে সরকারের সমস্ত বৈধ কাগজপত্র নেই আমি সৌদি তে কর্মসংস্থানে আছি তাহলে আমি গোপনে কিভাবে দেশত্যাগ করলাম? আর ভালুকা ডট কম নিয়ে আপনি যে ঘোষণা পত্র দিয়েছেন তার মধ্যে লিখেছেন আমি অজ্ঞাত স্থানে আছি কিন্তু ভালুকা ডট কম আমার সম্পর্কে যে তথ্য দেয়া আছে তাতে কি আপনার মতো দায়িত্বশীল ব্যক্তি এমন কথা বলতে পারে?

উত্তরে মেয়র ডাক্তার কাইয়ুম সাহেব বললেন কয়েক জন লোক আমার কাছে এই লেখাটা লেখে নিয়ে এসেছিল আমি না পড়ে তারমধ্যে স্বাক্ষর করে দিয়েছি। তারা যদি এমন মিথ্যা তথ্য দিয়ে লেখালিখে থাকে তবে আমি তাদের সাথে কথা বলে আপনাকেও এর প্রতিকার প্রত্যয়ন পত্র দিয়ে দেব।

দ্বিতীয়তঃ আমি উনাকে প্রশ্ন করেছিলাম ভালুকা ডট কম উপদেষ্টা কমিটিতে আপনার নাম পদবি আপনাকে না জানিয়ে ব্যবহার করা হয়েছে ঘোষণাপত্রের যে উল্লেখ আপনি করেছেন তা কতটুকু সত্য? তারপর উনি উত্তরে বলেছিলেন আপনি আমার সাথে কোনো কথা বলেননি এই উপদেষ্টা কমিটি সম্পর্কে। আমি তখন উনাকে বিনয়ের সাথে জিজ্ঞাসা করলাম আমি তো দেশের বাইরে থাকি ভালুকা ডট কম ভালুকার কয়েকজন ব্যক্তি চালাতে আমাকে সহযোগিতা করছে তারমধ্যে প্রবীণ সাংবাদিক আব্দুল আউয়াল ঢালী একজন উনি তো আপনার সাথে কথা বলেছে। উনি উত্তরে বলেন আব্দুল আউয়াল ঢালী এ বিষয়ে আমার সাথে কোন কথা বলেনি।

তখন আবারো বিনয়ের সাথে উনাকে প্রশ্ন করেছিলাম ভালুকা ডট কম এর ৯ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যেখানে আপনি বিশেষ অতিথি ছিলেন যে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রথমবার ভালুকা ডট কমের উপদেষ্টা কমিটি ঘোষণা করা হয় তখন কিন্তু আপনি এর কোনো প্রতিবাদ করেনি আজ প্রায় আট/ দশ মাস পর কি জন্য এমন ঘোষণা? উত্তরে তিনি বলেন আমি ওই অনুষ্ঠানে ছিলাম আপনারা দাওয়াত দিয়েছিলেন তাই গিয়েছিলাম কিন্তু কমিটির বিষয়টা আমি শুনিনি।

জানুয়ারি ২০১৫ইং সাল থেকে ভালুকা ডট কম এর কোনো কর্মকাণ্ডের সাথে সাংবাদিক আলহাজ্ব জহিরুল ইসলাম জুয়েল কোন ভাবেই জড়িত নয় যা ভালুকা ডট কম ২১ জানুয়ারি ২০১৫ইং সনে একটি ঘোষনা পত্রের মাধ্যমে তিনি ভালুকা ডট কমের পরিচালক পদ থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন।লিং টিতে সত্য মিথ্যা প্রমানিত-http://valuka.com/News/NewsDetail/19846

এই বিষয়ে আমার ছোট্ট একটি প্রশ্ন ভালুকা ডট কম কে নিয়ে ঘোষণাপত্র প্রদানকারী সম্মানিত দুইজন ব্যক্তি উপজেলা চেয়ারম্যান এবং পৌর মেয়রকে আপনাদের আগে যে উপজেলা চেয়ারম্যান এবং যে পৌর মেয়র ছিলেন তাদের ওই সময়ের কর্মকাণ্ডের দায়ভার কি আপনাদের উপর আছে অথবা আপনাদের বর্তমান কর্মকাণ্ডের দায়ভার কি ভবিষ্যতে অন্য কেউ এই পদে আসলে তাদের থাকবে? যদি না থাকে তবে ২০১৫ইং সালে যে ব্যক্তি একটি পথ থেকে ঘোষনা পত্রের মাধ্যমে অব্যাহতি নিয়েছেন তিনি কি করে ওই প্রতিষ্ঠান ২০১৮ইং সনের কর্মকান্ডের জন্য জবাবদিহিতা করবে ।

তারপরেও আপনাদের কে ভালুকা ডট কম এর উপদেষ্টা বলার কারনে যদি আপনাদের সম্মানহানি হয়ে থাকে আমি আপনাদের কাছে সর্বসম্মুখে ক্ষমা প্রার্থনা করছি আপনারা বড় দায়িত্বশীল ছোট হিসাবে আমাকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন এটাই স্বাভাবিক। তবে আপনারা ঘোষণাপত্রে যে মিথ্যাচার যে দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছেন তার জন্য আপনাদের কে আমি ক্ষমা চাইতে বলে আপনাদের সম্মানহানি করতে চাই না আপনারা আমার কাছে সম্মানিত সব সময় ।

সব শেষ বিংশ শতাব্দীর জনপ্রিয় বাঙালি কথাসাহিত্যিকদের মধ্যে অন্যতম হুমায়ূন আহমেদের একটি উক্তি আমার খুব প্রিয়- "তুমি ভুল করেছ তার মানে তুমি মানুষ আর তুমি সেই ভুলের জন্য অনুতপ্ত তার মানে তুমি একজন ভালো মানুষ।" আর আমি মনে করি সেই ভুলে অনুতপ্ত না হয়ে আত্মঅহমিকা আর অহংকারে ভুলকে সঠিক বলে চালানো তার মানে আমি অমানুষ । মারামারি- হানাহানি সমাজের নিত্যদিনের সঙ্গী আজ। যান্ত্রিক জীবনে আমাদের মধ্য থেকে হারিয়ে যাচ্ছে বিনয় ও হাসিমুখের সরল সম্ভাষণ। নিতান্ত পরিচিত কিংবা বন্ধু- বান্ধব ছাড়া আমরা হাসিমুখে কথা বলতে ভুলে গেছি। নিজেদের দৈনন্দিন জীবনে বিনয় ও সরলতা দিন দিন দুর্লভ হয়ে উঠছে। আত্মঅহমিকা আর অহংকারের সঙ্কীর্ণতায় আবদ্ধ আমরা।

২০১১ সালের ০১ মে যখন ভালুকা ডট কম যাত্রা শুরু করে, আমার লক্ষ্য ছিল একটিই- ভালুকা কে মিডিয়ার সাথে যুক্ত করা। ভালুকার আনাচে কানাচের সংবাদ গুলোকে আমারমত ভালুকার যারা দেশের বাইরে থাকেন তাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার। কিন্তু পরে তা পাঠকদের প্রয়োজনে ভালুকার গন্ডি পেরিয়ে কিছুটা বাইরে চলে গেছে । তারপরও পুরোপুরি নিশ্চিত না হয়ে কোনও সংবাদ প্রকাশ না করা। সংবাদে সব পক্ষের তথ্য যথাযথভাবে আছে কিনা তা দেখা। একটি ঘটনার সবক’টি দিক যাচাই করে মনের প্রশ্নগুলোর উত্তর খোঁজা। সেই উত্তরগুলো সাজিয়ে, বিশ্লেষণ করে পাঠকদের কাছে পৌঁছে দেওয়া। এই লক্ষ্যে অটুট ভালুকা ডট কম কারন প্রথমেই বলা হয়েছে সততাই আমাদের কাম্য । সংবাদ মাধ্যম এটা এমন একটা মাধ্যম যে খানে কাজ করে কাউকে খুশি করা সম্ভবনা কেউ না কেউ প্রতিপক্ষ হয়েই যায় ।

অনলাইন সংবাদ সোশ্যাল মিডিয়ার এই যুগে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে সারাবিশ্বে। একটা স্মার্ট ফোনে ইন্টারনেট সংযোগ থাকলেই হলো।পৃথিবীর যে কোনও স্থানে বসে পুরো বিশ্বের খবর মুহূর্তেই জেনে নেওয়া যায়। এ কারণে অনলাইন সংবাদ মাধ্যমগুলোকে অনেক দায়িত্বশীল হতে হয় আর তাই আমি বিশ্বাস করি আমারও সমাজের প্রতি একটা দায়িত্ব আছে আর আমি আমার দায়িত্বে কখনও সজনপ্রিতি পছন্দ করিনা আর তাই হয় হাজী সানি নামটা একটু বেশি বদনাম ।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

সম্পাদকীয় বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৪৩ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই