তারিখ : ১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

আ.লীগের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে-কাদের

আ.লীগের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে-কাদের
[ভালুকা ডট কম : ২৬ সেপ্টেম্বর]
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আওয়ামী লীগের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে। সুনামগঞ্জ থেকে সুন্দরবন এ অভিযান চলবে। মদ, জুয়া, ক্যাসিনো বিএনপি শুরু করেছিল। এখন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এগুলোর বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযানে নেমেছেন।

আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুরে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। দেশজুড়ে জুয়া ও মাদকের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান প্রসঙ্গে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেছেন, খালেদা জিয়া যা পারেননি, শেখ হাসিনা তা করে দেখাচ্ছেন। এজন্য সরকারের জনপ্রিয়তা অনেকগুণ বেড়ে গেছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের আও বলেন, বিএনপির আমল থেকেই দেশে টেন্ডারবাজি, দুর্নীতি, চাঁদাবাজিসহ মাদক সন্ত্রাসের যাত্রা শুরু হয়েছিল। কিন্তু তখন তারা নিজেদের দলের কারও বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়নি। বিএনপি যা পারেনি, আওয়ামী লীগ সেটা করে দেখিয়েছে। সেজন্য বিএনপির উচিত আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দেয়া।

এদিকে, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন,আজ বিএনপির লোকেরা ক্যাসিনো নিয়ে অনেক বেশি সোচ্চার। শেখ হাসিনার সাহস আছে অন্যায়কারীদের ধরার, সে যে দলেরই হোক। যারা এতিমের টাকা মেরে খায়, বিএনপি তাদের বাদ দেয়ার সাহস করতে পারে না। যারা দুর্নীতি করে, তাদের বিরুদ্ধে একমাত্র শেখ হাসিনাই ব্যবস্থা নিতে পারেন। তিনিই পারেন বাংলাদেশকে দুর্নীতিমুক্ত করতে। বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত ‘ইনডেমনিটি: এক কালো অধ্যায়, ভুলিনি এবং ভুলবো না’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির উদ্দেশে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘দলের আরেকজন যিনি দুর্নীতির কারণে মুচলেকা দিয়ে বিদেশে পলাতক, তাকে দুটো গালিও দিতে পারে না বিএনপি। শুধু বড় বড় কথা বলতে পারেন আপনারা। দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি আমাদের শেখাবেন না। তার কারণ হচ্ছে আপনাদের নেতা থেকে শুরু করে, আপনাদের দলের প্রত্যেকের মাথা পর্যন্ত দুর্নীতিতে ডুবে আছে। আমরা আপনাদের বিচার করছি বলেই আজকে আপনাদের এত চিল্লাচিল্লি।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সাথে জিয়াউর রহমানের জড়িত থাকার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন,কর্নেল ফারুক ও রশিদ যখন জিয়াউর রহমানকে গিয়ে বলেন যে তারা শেখ মুজিবকে হত্যা করতে চান, তখন জিয়াউর রহমান বলেছিলেন, আমি তো করতে পারব না, তোমরা করলে আমাদের অসুবিধা নেই। এটা খুনিরাই স্বীকার করে গেছেন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের অন্যতম ষড়যন্ত্রকারী জিয়াউর রহমান। আমরা দেখেছি জিয়াউর রহমানের আমলে কী হয়েছিল। আমরা দেখেছি আমাদের পিতা-মাতা কীভাবে অত্যাচারের শিকার হতেন। আমাদের লজ্জা ঢাকার জায়গা ছিল না যখন খুনি রশিদ, খুনি ফারুক বক্তৃতা দিত ফ্রিডম পার্টির নামে। আমরা এসব দেখেছি। কিন্তু আমাদের বর্তমান প্রজন্ম, ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এগুলো দেখেনি। তাদের এসব জানাতে হবে। সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন অভিনেতা ড. এনামুল হক, আজিজুল হাকিম, রিয়াজ, আমিরুল হক চৌধুরী, মান্নান হিরা প্রমুখ।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অন্যান্য বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৯২৯ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই